মঙ্গলবার, জুলাই 23, 2024
HomeNewsরামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali

রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali

 

রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali

 

রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali:  অযোধ্যায় যখন রাম সীতার বিবাহ ধুমধাম ভাবে করা হলো এবং দেখতে দেখতে বারোটা বছর সুখেই কেটেছিল । রাজা দশরথ বৃদ্ধ হয়ে পড়েছিল ও শ্রীরামচন্দ্র উপযুক্ত ছিল । তাই রাজা দশরথ রামচন্দ্রকে সিংহাসনে বসিয়ে রাজসভা থেকে অবসর নিতে চেয়েছিলেন।

রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali
রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali

এই দিকে অযোধ্যাবাসি রাজ্যের সংবাদ পেয়ে খুশি হয়ে রাজার প্রস্তাব মেনে নেয় । কুচি দাসী মন্থরা এই সংবাদ কৈকেয়ী(Kaikeyi) কে দিল ।তারপর আনন্দে কৈকেয়ী নিজের গলার বহুমূল্য রত্ন হার দাসী মন্থরাকে পুরস্কার দিল কুচিদাসী সেই হার ছুড়ে ফেলে দিল।

রামের 14 বছর বনবাস

রামের 14 বছর বনবাস: হিংসুটে মন্থরা কৈকই বোঝালো রাম হল তার সতীন পুত্র। রাম যদি রাজা হয় তখন সে ভরতকে (Bharata)রাজ্য থেকে তাড়িয়ে দেবে। তখন কয় কি যাবে কোথায় ? কথাটা কয়কির মনে লাগলো কিন্তু সেই উপায় খুঁজে পেল না। তারপর মন্থরা বলল দেখ!তুই রাজাকে যখন সেবা সুস্থ করে বাঁচালি তখন তোকে দুটো বর দিতে চেয়েছিল সেই বর এখন চেয়ে নে।

এক বরে রামের 14 বছর বনবাস আরেক বরে ভরতের রাজ্য অভিষেক কৈকেয়ী নিলজ্জ ভাবে রাজার কাছে গিয়ে জানালো তার ইচ্ছের কথা রাজা দশরথ (King Dasaratha) আশ্চর্য হয়ে যান এবং নানা প্রকারে কে কে বোঝানোর চেষ্টা করলেন যে, জ্যেষ্ঠ পুত্রই রাজ সিংহাসনের অধিকারী হওয়া অতি আবশ্যক এর অন্যথা সম্ভব নয় কিন্তু কৈকেয়ী কিছুতেই তার স্বামীর কথা মানলেন না।

Also Read- Click Here

Ramayan Ayodhya Kand in Bengali || রাজা দশরথের পুত্র শোক

তারপর দুজনে মধ্যে কলহ সৃষ্টি হয়। তার পরের দিন রাম সবকিছু জানতে পেরে যায় এবং রাম তার সৎ মা কৈকেয়ীকে বললেন! মা পিতৃ বচন পালন করার জন্য আমি বনবাস যাব । এই রাজ সিংহাসন ভরতই পাবে এই কথা শুনে কৈকেয়ী আনন্দে আত্মহারা হয়ে উঠল। শোকে অচেতন রাজা দশরথ কিছুই বলতে পারলেন না।

রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali

রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali

রামচন্দ্র বনবাস যাওয়ার জন্য প্রস্তুত হলেন তার সাথে বনে যাওয়ার জন্য লক্ষণ আর সীতা দেবী ও তার সঙ্গ নিলো। রাম তার স্ত্রী সীতা এবং ভাই লক্ষণকে বনের অনেক সমস্যার কথা বলল এবং বনে তার সাথে যাওয়ার জন্য নিষেধ করল কিন্তু তাও দুজনে মানলো না তারপর রাম বাধ্য হয়ে তাদের সঙ্গে নিলেন।

রাম রাজ সিংহাসনে বসবেন এই খবর শুনে রাজ্যবাসী আনন্দে ছিল সেই রাম হঠাৎ বনবাসী গেছেন । এই খবর শুনে রাজ্যবাসী দুঃখে ভেঙ্গে পড়লেন। সমগ্র নগরবাসী কাঁদতে কাঁদতে তাদের পিছনে চলল। খানিকদুর যাওয়ার পর রাম তাদের ফিরে যাওয়ার আদেশ দিলেন।

Ramayan Ayodhya Kand || ভরত এবং শত্রুঘন

Ramayan Ayodhya Kand: ভরত এবং শত্রুঘন: ভগ্নহৃদয়ে তারা ফিরে এলো এদিকে বৃদ্ধ দশরথ পুত্রের বনবাস শোক বেশিদিন সহ্য করতে পারলেন না। কিছুদিনের মধ্যেই তিনি প্রাণ ত্যাগ করলেন । অযোধ্যায় এতসব ঘটনার মধ্যে ভরত আর শত্রুঘন উপস্থিত ছিলেন না । তারা ছিলেন তাদের মামার বাড়ি রাজসভার দুত গিয়ে এই সমস্ত বিষয় জানিয়ে দিলে তারা তাড়াতাড়ি অযোধ্যায় ফিরে আসলেন।

ভরত ফিরে আসার পর সানন্দে কৈকেয়ী রামের বনবাস ও রাজ্য অভিষেকের কথা জানালো । ভরত সব শুনে ক্রোধ হয়ে উঠলো। তখন ভরত তার মাকে বলল। তুমি কি করেছো মা এই পাপের কোন ক্ষমা নেই । রামচন্দ্র ক্রোধিত হবেন না হলে তোমাকে আমি রাজ্য থেকে বের করে দিতাম ।

ভরতের প্রতিজ্ঞা

ভরতের প্রতিজ্ঞা: তারপর সকল অশান্তির মূল গড়া মন্থরাকে শত্রুঘন শাস্তি দিতে শুরু করল ,তখন ভরত এসে তাকে রক্ষা করে আর ভরত বললেন রাজ সিংহাসন শ্রী রামের (ram) সেই সিংহাসনে আমি কখনোই বসব না ।সে আরো প্রতিজ্ঞা করল রামচন্দ্র কে রাজ্যে ফিরিয়ে আনে সিংহাসনে বসিয়ে সে নিজেই 14 বছর বনবাসে যাবে।

রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali
রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali

কথা মতো ভরত চললেন রামচন্দ্রকে ফিরিয়ে নিতে বনে । পথে এক রাতের জন্য তারা ভরতরাজ মুনির আশ্রমে আশ্রয় নিলেন মনি তাদের সকলকেই খুব ভালোভাবে আপ্যায়ন করলেন। ভারত তার কাছেই সংবাদ নিল যে রাম সীতা ও লক্ষণ চিত্রকূট পর্বতে আছেন।

ভরত সেখানে গিয়ে রামচন্দ্রের পায়ে পড়ে কাঁদতে কাঁদতে অযোধ্যায় ফিরে যাওয়ার অনুরোধ করলেন । রাম তাকে অনেক বুঝিয়ে সান্তনা দিলেন তখন ভারত বললেন !বেশ যদি তুমি না যাও তাহলে তোমার পাদুকা জোড়া আমায় দাও সিংহাসনে তোমার পাদুকা জোড়া রেখে আমি রাজ্য শাসন করব ।

নন্দীগ্রামে রাজধানী স্থাপনা

নন্দীগ্রামে রাজধানী স্থাপনা: রাম তার পাদুকা জোড়া ভরতকে দান করলো। ভরত সেই পাদুকা জোড়া মাথায় নিয়ে অযোধ্যায় ফিরলেন । রাম শূন্য অযোধ্যা আর ভালো লাগল না ভরতকে । একটু দূরে নন্দীগ্রামে রাজধানী স্থাপনা করে রামের পাদুকা জোড়া সিংহাসনে বসিয়ে ভরত রাজ্য শাসন পরিচালনা করতে লাগলেন ।

রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali
রামায়ণে অযোধ্যা কান্ড || Ramayan Ayodhya Kand in Bengali

ভারত চলে যাওয়ার পর রাম সীতা ও লক্ষণ অত্রিয় ঋষির আশ্রমে আশ্রয় নিলেন । অত্রিয় ঋষির পত্নী অনুসূয়া সীতা দেবীকে পোশাক, বস্ত্র, মালা উপহার দিলেন ,আদর যত্নে অত্রিয় মুনির আশ্রমে রাত কাটিয়ে তারা দন্ডক বনে প্রবেশ করলেন, এরপর থেকে শুরু হয় রামায়ণের অরণ্য কান্ড।

 

Pratidin24ghanta.com

RELATED ARTICLES

Most Popular

close