সোমবার, এপ্রিল 22, 2024
HomeModel Activity TaskModel Activity Task Class 10 Bengali - Model Activity Task Class...

Model Activity Task Class 10 Bengali – Model Activity Task Class 10 Bengali for Students

Model Activity Task Class 10 Bengali

Model Activity Task Class February 2022

A Great Way to Enhance Your Learning

If you’re a student studying in Class 10 in a Bengali medium school, then you know that you have to complete various tasks and activities as part of your curriculum. These tasks and activities are meant to help you learn and understand the subject better. However, sometimes it can be challenging to complete these tasks on your own, especially if you’re having trouble understanding the concepts.

Model Activity Task Class 9 Bengali – Part 2 February 2023

নবম শ্রেণি

বাংলা (প্রথম ভাষা)

পূর্ণমান – ২০

Model Activity Task Class 10 Bengali February 2022

১. ঠিক উত্তরটি বেছে নিয়ে লেখাে : ১x৩=৩ 

১.১ ধীবর বৃত্তান্ত’ নাট্যাংশে জেলেটির বাড়ি – 

(ক) উজ্জয়িনীতে

(খ) শচীতীর্থে 

(গ) শক্রাবতারে

(ঘ) হস্তিনাপুরে 

উত্তর: ধীবর বৃত্তান্ত’ নাট্যাংশে জেলেটির বাড়ি – (গ) শক্রাবতারে l

১.২ ধীবর যে আংটিটি পেয়েছিল, তাতে খােদাই করা ছিল – 

(ক) রাজার ছবি

(খ) রাজ্যের নাম 

(গ) রাজার নাম

(ঘ) শকুন্তলার নাম 

উত্তর: ধীবর যে আংটিটি পেয়েছিল, তাতে খােদাই করা ছিল – (গ) রাজার নাম l

১.৩ ‘এ অবশ্যই গােসাপ-খাওয়া জেলে হবে।’— কথাটি বলেছেন – 

(ক) প্রথম রক্ষী

(খ) দ্বিতীয় রক্ষী 

(গ) রাজা।

(ঘ) রাজশ্যালক 

উত্তর: ‘এ অবশ্যই গােসাপ-খাওয়া জেলে হবে।’— কথাটি বলেছেন – (ঘ) রাজশ্যালক 

 

২. কমবেশি ২০টি শব্দে উত্তর লেখাে : ১x৩=৩

২.১ শুনুন মহাশয়, এরকম বলবেন না।’ – কোন্ ধরনের কথা বলতে বক্তা নিষেধ করেছে? 

উত্তর: রাজার শ্যালক ধীবরের পেশার সম্পর্কে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করলে বক্তা ধীবর রাজার শ্যালককে নিষিদ্ধ করেন যাতে কেউ কোনো ব্যক্তির জীবনযাপন সম্পর্কে বিনা প্রয়োজনে ব্যঙ্গ-বিদ্রুপ করবে না।

২.২ ‘সূচক, এই জেলেকে ছেড়ে দাও।’ – জেলেকে ছেড়ে দিতে বলা হলাে কেন? 

উত্তর: আংটি পাওয়ার সমস্ত ঘটনা ধীবরের প্রতি সত্যপ্রমাণ করা হয় রাজার কাছে। ধীবর নির্দোষ হওয়ার কারণে রাজার নির্দেশে রাজশ্যালকে উল্লেখ করে জেলে ছেড়ে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়।

২.৩ ‘একি যা-তা অনুগ্রহ!’ – ধীবর অনুগৃহীত কেন? 

উত্তর: আংটি পাওয়ার ব্যাপারে ধীবর নির্দোষ প্রমাণিত হয় এবং রাজা দুষ্মন্তের আদেশে আংটির সমপরিমাণ অর্থ তাকে পুরস্কার দেওয়া হয়। রাজার এই মহান ব্যবহারে ধীবর অনুগৃহীত হয়ে ওঠে।

৩.প্রসঙ্গ নির্দেশসহ কম-বেশি ৬০টি শব্দে উত্তর লেখাে : ৩x৩=৯

৩.১ ‘সূচক, একে পূর্বাপর সব বলতে দাও। – ধীবর বর্ণিত কাহিনিটি বিবৃত করাে। 

উত্তর: উদ্ধৃতাংশটি কালিদাস কবির রচিত ‘ধীবর-বৃত্তান্ত নামক নাট্যাংশ থেকে নেওয়া হয়েছে।

এই বৃত্তান্তে বর্ণিত হল, রাজার নামাঙ্কিত আংটি ধীবরের কাছে পৌঁছে গেলে সে তাকে চোর হিসাবে দাখিল করে। আংটি যেভাবে ধীবরের হাতে পৌঁছেছিল তার পূর্বের কাহিনী ধীবর জানানো হলে সে পেশায় জেলে দেয়া হয়। তার বাড়িটি সক্রবতার ছিল এবং সে মাছ ধরে সংসার চালাতে থাকতেন। একদিন মাছ ধরার পর যখন সে মাছটি টুকরা করছিল তখন মাছের পেটের মধ্যে থেকে এই আংটি সে পায়। পরবর্তীকালে সে এই আংটিটি বিক্রি করার জন্য লোকজন কে দেখাতে যখন সে বাজারে নেমে উঠছিল তখন রক্ষকদের হাতে যাওয়ার জন্য সে পাকানো হয়। তাই ধীবর চোর নয়, তিনি নির্দোষ।

৩,২ ‘তবে তাই হােক।’ – কোন্ বিষয়ে কারা সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন?

উত্তর:উদ্ধৃতাংশটি মহাকবি কালিদাস রচিত ‘ধীবর-বৃত্তান্ত নামক নাট্যাংশ থেকে গৃহীত হয়েছে। রাজা দুষ্মন্তের নামাঙ্কিত আংটি এক জেলের কাছে পাওয়া গেলে তাকে চোর সন্দেহে বন্দী করা হয়। জেলে তার পরিচয় দেয় এবং বারবার বলতে থাকে যে সে নির্দোষ। সে জানায়, একটি রুই মাছকে খন্ড করার সময় মাছের পেটের থেকে এই আংটি সে পেয়েছে। ধীবরের এই কথায় সত্যতা থাকলেও রাজরক্ষী এবং রাজ শ্যালক ধীবরের এই কথায় বিশ্বাস খুঁজে পায় না। তাই চোর সন্দেহে আটক ধীবরের কথা সত্য না মিথ্যা তা রাজর সমীপে অনুসন্ধান করার প্রয়ােজনীয়তা পড়ে। ধীবরকে রাজবাড়ির সম্মুখে আনার বিষয়ে রাজ শ্যালকের সিদ্ধান্তে দুই রক্ষী জানুক এবং সূচক একত্রে সম্মতি প্রকাশ করে।

৩,৩ ‘…সেই আংটিটা রাজার (খুব) প্রিয় ছিল। – এই উক্তির পরিপ্রেক্ষিতে রাজশ্যালক কী বলেছিলেন ? 

উত্তর: উদ্ধৃতাংশটি মহাকবি কালিদাস রচিত ‘ধীবর-বৃত্তান্ত নামক নাট্যাংশ থেকে গৃহীত হয়েছে।

উক্তির পরিপ্রেক্ষিতে রাজ-শ্যালকের বক্তব্য: রাজার আংটি চুরির অপরাধে আটক জেলেকে শাস্তি দেওয়ার বদলে রাজার হুকুমে আংটির সমমূল্য অর্থ পুরস্কৃত করা হয়েছে। এতে রক্ষী জানুক হতবাক হয়ে বােঝার চেষ্টা করে, হয়তাে আংটিটি মূল্যবান ছিল বলে এই পুরস্কারের ব্যবস্থা। জানুকের এই ভাবনার প্রত্যুত্তরে রাজ শ্যালক জানায়, শুধুমাত্র দামি রত্ন বসানাে ছিল বলেই আংটিটি রাজার কাছে মূল্যবান ছিল, তা নয়। এই আংটি দেখামাত্র রাজা বিহ্বল হয়ে পড়েছিলেন। রাজা দুষ্মন্তের স্মৃতিপটে ভেসে উঠেছিল তার কোনাে প্রিয়জনের কথা।তাই স্বভাবতই আংটিটি গুণগত কারণে নয় , স্মৃতিচিহ্ন হিসেবে ছিল রাজার কাছে মূল্যবান।

 

৪. কম-বেশি ১৫০ শব্দে নীচের প্রশ্নটির উত্তর নিজের ভাষায় লেখাে : ৫

‘শােনাে ধীবর, এখন থেকে তুমি আমার একজন বিশিষ্ট প্রিয় বন্ধু হলে।’ – কীভাবে ধীবর বক্তার বন্ধু হয়ে উঠল, ‘ধীবরবৃত্তান্ত নাট্যাংশ অনুসরণে আলােচনা করাে।

উত্তর:

উদ্ধৃতাংশটি মহাকবি কালিদাস রচিত ‘ধীবর-বৃত্তান্ত’ নামক নাট্যাংশ থেকে গ্রহণ করা হয়েছে।

ধীবর এবং রাজশ্যালকের বন্ধুত্বের বিবরণ: একটি ধীবর রাজা দুষ্মন্তের নামক আংটি পাওয়া গেলে রক্ষীরা তাকে বন্দী করে বিচারের জন্য রাজশ্যালকের কাছে নিয়ে যায়। এই সময়ে রাজশ্যালক ও ধীবর একসাথে আলাপ করে। ধীবর আংটি পাওয়ার সকল ঘটনার বর্ণনা দিলেও প্রথমে রাজশ্যালক তাকে চোর হিসেবে ধরে নেয়। রাজশ্যালক ধীবরের গা থেকে মাংসের গন্ধ পেয়ে তাকে ঘৃণা করে এবং তার জীবিকার কথা দিয়ে তামাশা করে।

বন্ধুত্বের কারণ: রাজা ধীবরের কথার সত্যতা যাচাই করতে রাজশ্যালক ধীবরের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করে। বিভিন্ন সাক্ষ্য এবং অনুভূতি এর ফলে গৃহীত হয় যে ধীবর সত্য বলেছে এবং তিনি চোর নন। তার জন্য শ্যালক তাকে পুনরায় বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করে। শ্যালক ধীবরের সচেতনতার পরিচয়ে আকর্ষিত হন। সে বুঝতে পেরে যে ধীবরের কথাগুলি সত্য এবং তার প্রতি তারা বিরূপ আচরণ করেছেন।

দ্বিতীয়ত, আংটির সমান মূল্যের অর্থ রাজা ধীবরকে পুরস্কৃত করে। এটি রাজশ্যালকের ভাব জগতে বিস্ফোরণ সৃষ্টি করে। রাজশ্যালক ভাবতে পারেন যে একজন মানুষ যদি রাজার দ্বারা পুরস্কৃত হয় তবে সে ঘৃণার মুখে পড়ে। তাই শ্যালক ধীবরের প্রতি বন্ধুত্বপূর্ণ মনের ভাব প্রকাশ করেন।

তৃতীয়ত, রাজার প্রিয়জন ধীবরের স্মৃতি ফিরিয়ে আনতে চায় শ্যালক। তিনি রাজার উপকার করার মাধ্যমে ধীবরের প্রতি আনুগত্য প্রতিষ্ঠাতার সুযোগ পান। তাই তিনি ধীবরের প্রতি আনন্দিত হয়।

এভাবেই ধীবরের কর্মগুণ,সততা এবং নৈতিকতার উজ্জলতা রাজার শ্যালককে মুগ্ধ করে। প্রথম দর্শনে যে সম্পর্ক ঘৃণা দিয়ে তৈরি হয়েছিল তা নিমেষের মধ্যেই বন্ধুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে।

Model Activity Task Class 10 Bengali
Model Activity Task Class 10 Bengali

Pori Moni Wiki Biography || 2023 News

Model Activity Task Class 10 Bengali

That’s where Model Activity Task Class 10 Bengali comes in. It is a great way to enhance your learning and make the subject more interesting and engaging. A model activity task is a pre-designed task or activity that is based on the curriculum and is meant to provide a hands-on experience to the students. These tasks are usually designed to be fun and interactive, which helps in retaining the interest of the students.

Model Activity Task Class 10 Bengali is designed to cater to the specific needs of students studying in Class 10 in Bengali medium schools. These tasks are created by subject experts and are based on the latest curriculum. They are designed to provide a clear understanding of the concepts and help the students develop problem-solving skills.

The best part about Model Activity Task Class 10 Bengali is that it can be used as supplementary learning material along with your regular textbooks. You can complete these tasks and activities at your own pace, which helps in understanding the subject better. These tasks and activities are also a great way to prepare for your exams as they cover all the essential topics and provide you with the necessary practice.

Model Activity Task Class 10 Bengali

In conclusion, if you’re looking for a way to enhance your learning and make the subject more interesting, then Model Activity Task Class 10 Bengali is the perfect solution for you. These tasks and activities are designed to provide you with a hands-on learning experience that is both fun and engaging. So, don’t wait any longer, start using Model Activity Task Class 10 Bengali today and see the difference for yourself!

RELATED ARTICLES

Most Popular

close